আদালতের সতর্কতা এড়িয়ে গেলেন সালমান

0
281

খুলনাটাইমস বিনোদন: শুক্রবার বলিউড সুপারস্টার সালমান খানের বহুল আলোচিত কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা মামলার শুনানি ছিল। তবে এদিন যোধপুর আদালতে হাজির হননি দাবাং অভিনেতা। গত বছর মে মাসের পর আদালতে হাজির হননি সালমান। গত ৪ জুলাই এ মামলার শুনানিতে যোধপুর দায়রা আদালতের বিচারক চন্দ্র কুমার সোংগারা সালমানকে আজকের শুনানিতে উপস্থিত থাকার নির্দেশ দিয়েছিলেন। পাশাপাশি এর বিপরীত হলে জামিন বাতিল করা হবে বলেও সতর্ক করেছিলেন। যদিও আইনজীবী নিশান্ত বোরা জানিয়েছেন, সালমানের আদালতে হাজির হওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই এবং আদালত জোরও করেননি। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে গ্যারি শুটার নামের একটি আইডি থেকে বলিউডের এই সুপারস্টারকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হয়। গত ১৬ সেপ্টেম্বর স্টুডেন্ট অর্গানাইজেশন অব পাঞ্জাব ইউনিভার্সিটি (সোপু) নামের একটি গ্রুপে পোস্টটি করা হয়। সালমানের একটি ছবিতে ক্রস চিহ্ন দিয়ে হিন্দি ভাষায় পোস্টটিতে লেখা হয়েছে, ‘সালমান তুমি মনে করছো ভারতীয় আইন থেকে বেঁচে যাবে। কিন্তু বিষ্ণোই সমাজ, সোপু পার্টি তোমাকে মৃত্যুদ- দিয়েছে। সোপুর আদালতে তুমি দোষী।’ পরবর্তী সময়ে পোস্টটি ভাইরাল হলে এ বিষয়ে তদন্ত শুরু করে পুলিশ। নিশান্ত বোরা জানান, আদালতে সালমানের প্রাণনাশের হুমকির বিষয় এবং আদালত চত্বরে এই অভিনেতা এলে যে বিশৃঙ্খলা তৈরি হয় তা নিয়ে উদ্বেগ জানানো হয়েছে। যোধপুর জেলা দায়রা আদালত আগামি ২৭ ডিসেম্বর এ মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছেন। ১৯৯৮ সালে হিন্দি ভাষার হাম সাথ সাথ হ্যায় সিনেমার শুটিং চলাকালীন যোধপুরের কাছে কঙ্কনী গ্রামে বিরল প্রজাতির কৃষ্ণসার হরিণ শিকারের অভিযোগ ওঠে সালমানের বিরুদ্ধে। পরবর্তী সময়ে এ বিষয়ে মামলাও দায়ের হয়। সিনেমাটিতে সালমান খানের সহশিল্পী সাইফ আলী খান, সোনালী বেন্দ্রে, টাবু ও নীলমকেও এ মামলায় অভিযুক্ত করা হয়। দুই দশকের বেশি সময় ধরে চলছে এই মামলা। ভারতের বন্যপ্রাণী আইন অনুযায়ী বিরল প্রজাতির কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা দ-নীয় অপরাধ। বিষ্ণোই সম্প্রদায়ের মানুষ এই হরিণকে ভক্তি করেন এবং রক্ষায় কাজ করে থাকেন। গত বছর এপ্রিলে এই মামলায় সালমানকে পাঁচ বছরের কারাদ- দিয়েছিলেন যোধপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দেব সিং খাতরি। পাশাপাশি এই অভিনেতাকে ১০ হাজার রুপি জরিমানা করা হয়। সালমান দুদিন কারাগারে ছিলেন। এরপর জামিনে ছাড়া পান। অন্যদিকে এ মামলায় অভিযুক্তরা অব্যাহতি পান।