অযোগ্য প্রশাসন দিয়ে সিটি কর্পোরেশন পরিচালনা সম্ভব নয় : নবনির্বাচিত মেয়র

0
466

এম জে ফরাজী : বিদায়ী মেয়র মনিরুজ্জামান মনিকে অযোগ্য বলে আখ্যায়িত করে খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি)’র নবনির্বাচিত মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, অযোগ্য প্রশাসন দিয়ে সিটি কর্পোরেশন পরিচালনা সম্ভব নয়। মঙ্গলবার বেলা ৩টায় নগর ভবনে নিচে স্থাপিত মঞ্চে দায়িত্ব গ্রহণের পূর্বে বক্তৃতাকালে তিনি এ কথা বলেন।


নবনির্বাচিত মেয়র আরও বলেন, বিদায়ী মেয়র এতটাই অযোগ্য; আজকের অনুষ্ঠানের যে দাওয়াত কার্ড উনি ছাপিয়েছেন সেখানে উনার নিজের নামই বাদ পড়েছে। নিজের অযোগ্যতা ঢাকতে তিনি আজ এখানে উপস্থিত হননি। বরং সরকারের নামে মিথ্যাচার করছেন। তার অযোগ্যতায় সিটি কর্পোরেশনের কোন উন্নয়ন দৃশ্যমান হয়নি। সাহায্য চাইতে গেলেও যোগ্যতা লাগে যেটা বিদায়ী মেয়রের ছিল না বলে জানান তিনি।
সরকার কোথাও বরাদ্দ কম রাখেনি উল্লেখ করে মেয়র খালেক বলেন, গত ৫ বছরে সিটি কর্পোরেশনকে তিলে তিলে শেষ করে দেওয়া হয়েছে। এই পাঁচ বছরে সিটি কর্পোরেশনে ব্যয়কৃত প্রত্যেকটি টাকার হিসাব নেওয়া হবে। দুর্নীতিতে যেই জড়িত থাকুক কেউই ছাড় পাবে না।
নবনির্বাচিত মেয়র বলেন, কেসিসিতে ৮০০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ শুরু হবে। কিন্তু এতে অনেকেই খুশি হতে পারেননি। নগরীতে আটটি খাল আছে। এই অর্থ নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে খাল খনন ও সংস্কারে ব্যয় হবে। খাল দখল করে কেউ যদি সোনার বাড়িও তৈরি করে তা ভেঙ্গে ফেলা হবে।
দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে তিনি বলেন, আমার দলের কেউ ভাগ্যোন্নয়নের কথা ভেবে থাকলে তারা আমার কাছ থেকে ৩৬ হাত দূরে থাকবেন। আমি ন্যায় ও সততার সঙ্গে যে কাজ শুরু করেছি তা থেকে যেন দূরে সরে না যাই। আজীবন আমি মানুষের সেবায় কাজ করে যাব।
পাশাপাশি তিনি কেসিসি’র কাউন্সিলর ও কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, সেবার মানসিকতা নিয়ে কাজ করবেন। খুলনাকে মাদকমুক্ত, সুন্দর ও তিলোত্তমা নগরী গড়তে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ অনুযায়ী তিনি কাজ করে যাবেন।
কেসিসি’র প্যানেল মেয়র আনিছুর রহমান বিশ্বাসের সভাপতিত্বে দায়িত্ব হস্তান্তর অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন কেসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পলাশ কান্তি বালা। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তৃতা করেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের নবনির্বাচিত মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।
আরও বক্তৃতা করেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ মিজানুর রহমান মিজান এমপি, স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. মাহবুব হোসেন, খুলনা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হারুনুর রশিদ, বাগেরহাট জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা শেখ কামরুজ্জামান টুকু, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. হুমায়ুন কবির, খুলনা বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এমপি, অ্যাডভোকেট নূরুল হক এমপি, বাগেরহাট-৩ আসনের সংসদ সদস্য হাবিবুন্নাহার, সাবেক সংসদ সদস্য মোল্লা জালাল উদ্দিন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান, কুয়েটের উপাচার্য প্রফেসর ড. কাজী সাজ্জাদ হোসেন, নর্থ ওয়েষ্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. তারাপদ ভৌমিক, পুলিশ সুপার এস এম শফিউল্লাহ, কেসিসির নবনির্বাচিত কাউন্সিলরবৃন্দ প্রমুখ।
পরে কেসিসি’র প্যানেল মেয়র ও ১৬নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর আনিছুর রহমান বিশ্বাস নবনির্বাচিত মেয়রের কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করেন। এরপর তিনি নগর ভবনের তৃতীয় তলায় মেয়রের কক্ষে অতিথিদের নিয়ে প্রবেশ করেন এবং মেয়রের চেয়ারে বসেন।
গত ১৫ মে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি তালুকদার আব্দুল খালেক প্রায় ৬৫ হাজার ভোটের ব্যবধানে বিএনপির প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জুকে পরাজিত করে কেসিসি’র মেয়র নির্বাচিত হন। এর আগে তিনি ২০০৮ সাল থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত মেয়রের দায়িত্ব পালন করেন।