অবশেষে হচ্ছে খুলনা জেলা যুবলীগের সম্মেলন! বেড়েছে সাংগঠনিক তৎপরতা

0
1664

সুমন আহমেদ/ইয়াছিন আরাফাত : অবশেষে খুলনা জেলা যুবলীগের সম্মেলন হতে চলেছে। ইতোমধ্যে সংগঠনের সাবেক ও বর্তমান নেতৃবৃন্দের সাংগঠনিক তৎপরতাও লক্ষ করা গেছে। সংগঠনের নেতারা বলছেন, কাউন্সিলরের তালিকা প্রস্তুত করে কেন্দ্রে পাঠানো হলেই সম্মেলনের দিনক্ষণ নির্ধারণ হবে। যুবলীগ চেয়ারম্যানের বিশেষ নির্দেশে জরুরী ভিত্তিতে সম্মেলনের আয়োজন করা হচ্ছে। চলতি মাসের শেষে না হলেও অক্টোবরের শুরুতেই হচ্ছে জেলা যুবলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। সংগঠনের একাধীক নেতা এই তথ্য নিশ্চিত করে।
কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ খুলনাটাইমসকে বলেন, খুলনা জেলা যুবলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক না থাকায় সংগঠনটি অভিভাবকহীন হয়ে পড়েছে। আর অভিভাবকহীণ সংগঠনের কোন ভিত্তি। সুতরাই স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ ও সংসদ সদস্যদের সাথে আলোচনা করে সম্মেলনের মাধ্যমে সংগঠনকে চাঙ্গা করা হবে। সেক্ষেত্রে দীর্ঘদিনের হাল ধরে রাখা যুবনেতাদের ও সাবেক ছাত্রনেতাদের মূল্যায়ন করা হবে।
খুলনা জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা যুবলীগ সভাপতি মোঃ কামরুজ্জামান জামালসহ জেলা যুবলীগের একাধীক নেতৃবৃন্দ, চেয়ারম্যানের বরাত দিয়ে খুলনাটাইমসকে নিশ্চিত করেছেন, চলতি মাসেই সম্মেলন করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সম্প্রতি জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদকে সাথে নিয়ে স্থানীয় যুবনেতারা সাক্ষাত করতে গেলে যুবলীগ চেয়ারম্যান ড. ওমর ফারুক নিজেই তাদের এমন নির্দেশ দেন। তার নির্দেশনামতে, প্রস্তুতি শুরু হয়েছে।
খুলনা জেলা যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক আসাদুজ্জামান খান রিয়াজ বলেন, ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন প্রস্তুতির অংশ হিসেবে খুলনার নয় উপজেলায় ২৫ জন করে কাউন্সিলর থাকছে। কাউন্সিলরের তালিকায় রয়েছে জেলা কমিটির ৭১ সদস্য’র নাম। ইতোমধ্যে তালিকা প্রস্তুতি শেষের পথে। পনের সেপ্টেম্বরের মধ্যেই তালিকা পাঠানোর নির্দেশনা রয়েছে। তবেই মিলবে সম্মেলনের তারিখ। জেলা যুবলীগ নেতা অজিত বিশ^াস, এবিএম কামরুজ্জামান ও জলিল তালুকদার খুলনাটাইমসকে বলেন, নানা কারণে থমকে ছিল সংগঠনের সাংগঠনিক কর্মকান্ড। তবে এখন আমরা ঐক্যবদ্ধ, সামনে জাতীয় নির্বাচনে নৌকার জয়ই আমাদের মূল লক্ষ। তাছাড়া আমাদের মধ্যে অনেকের যুবলীগ করার সময় শেষ হয়ে এসেছে, সেক্ষেত্রে নতুনদের প্রাধান্য দেয়ার সাথে সম্মেলনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক বিদায় নেওয়াটা হবে অত্যন্ত আনন্দের।
আরও জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভানেত্রীর নির্দেশ, সাবেক ছাত্রনেতারা যুবলীগের কমিটিতে প্রাধান্য পাবে সংগঠনের চেয়ারম্যান ড. ওমর ফারুক স্থানীয় নেতাদের কাছে এমনটাই সুস্পষ্টভাবে জানিয়েছেন। তবে ত্যাগী ও পরীক্ষীত যুবলীগ নেতারাও প্রাধান্য পাবে কমিটিতে।
বর্তমান জেলা যুবলীগের নেতৃত্ব প্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন নেতৃত্বে যাদের নাম আলোচনায় আছে, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক শেখ আবু হানিফ, আসাদুজ্জামান খান রিয়াজ, অজিত বিশ^াস, জলিল তালুকদার, এবিএম কামরুজ্জামান, সরদার জাকির হোসেন, জামিল খান, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা বিধান চন্দ্র রায়, মাহফুজুর রহমান সোহাগ ও শেখ রেজা