অনুপ্রবেশকারী কোন জামায়াত-বিএনপিকে আ’লীগের টিকিট দেয়া যাবে না – আলহাজ্ব মিজান

0
608

খবর বিজ্ঞপ্তি:
খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, ১৪ দলের সমন্বয়ক ও সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান বলেছেন, বিএনপি’র মঞ্জু-রিজভী’র ষড়যন্ত্র সাধারণ মানুষের কাছে ফাঁস হয়ে গেছে। বিএনপি দিনমজুরের অর্থ আত্মসাৎ করে খুলনার পিপলস মিলকে বন্ধ করে দিয়েছিলো। আর জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা হিসেবে প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনা খালেদার বন্ধ করা জুট মিল চালু করেছিলেন। যারা শ্রমিকের জীবিকা বন্ধ করে দেয় সেই বিএনপি কখনও শ্রমিক দরদী হতে পারে না। তিনি প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন॥ তিনি আরো বলেন, দেশে আজ আর খাদ্যের অভাবে কোন মানুষকে প্রাণ দিতে হয়না। রোজার মাঝে সকল প্রকার খাদ্যদ্রব্য সাধারণ মানুষের নাগালের ভিতরে। মানুষ আজ পেটপুরে ভাত খেয়ে শান্তিতে ঘুমাতে পারছে। তিনি দলের নেতাকর্মীদর উদ্দেশ্যে বলেন, দলকে সুসংগঠিত করতে হবে। আর সে কারনেই আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে সকল ওয়ার্ডের সম্মেলন শেষ করতে হবে। সম্মেলনে শুরু হওয়ার আগেই টিকিট বিতরণ করতে হবে। আর টিকিট বিতরণ করতে হলে তার আগে মহানগরের কাছে কাউন্সিলরদের নামের তালিকা প্রদান করতে হবে। তিনি বলেন, দলে অনুপ্রবেশকারী কোন জামায়াত-বিএনপিদের আওয়ামী লীগের টিকিট দেয়া যাবে না। যে ওয়ার্ডে এ ধরনের টিকিট বিতরণ করা হবে, তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
গতকাল শনিবার দুপুর আড়াই টায় মহানগর আওয়ামী লীগের সম্পাদক ম-লীর সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথ বলেন। এসময়ে বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগ নেতা কাজী এনায়েত হোসেন, শেখ মো. ফারুক আহমেদ, আবুল কালাম আজাদ কামাল, মো. আশরাফুল ইসলাম, এ্যাড. আইয়ুব আলী শেখ, শ্যামল সিংহ রায়, মকবুল হোসেন মিন্টু, মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, শেখ ফজলুল হক, কাউন্সিলর জেড এ মাহমুদ ডন, এ্যাড. খন্দকার মজিবর রহমান, অধ্যা. আলমগীর কবির, কাউন্সিলর আলী আকবর টিপু, শেখ ইউনুস আলী, হাফেজ মো. শামীম, মো. মফিদুল ইসলাম টুটুল, শেখ নুর মোহাম্মদ।
সভায় সদস্য টিকিট বিতরনের লক্ষ্যে মহানগর আওয়ামী লীগের থেকে উপ-কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত হয়। দলের চেইন অব কমা- ফিরিয়ে আনতে কঠিন পদক্ষেপ গ্রহণের সিদ্ধান হয়। এছাড়া সকল সম্পাদককে স্ব স্ব পদের দায়িত্ব পালনের লক্ষ্যে উপ-কমিটির গঠনের সিদ্ধান্ত হয়। এসকল সিদ্ধান্ত মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটি বরাবরে সুপারিশ আকারে প্রেরণের সিদ্ধান্ত হয়।