সেবায় অনন্য সেই ছোট্ট পরশ, নেপথ্যে শেখ সোহেল’র নির্দেশ-অনুপ্রেরণা

0
115

নিজস্ব প্রতিবেদক:
সেবায় অনন্য ছোট্ট পরশ। অবশ্য, সে এখন আর ছোট্ট নেই, বিশাল দেহের অধিকারি এক তরুণ। দিন-রাত শ্রম দিচ্ছেন জনসেবায়, খতিয়ে খতিয়ে করছেন তালিকা তৈরী। খাদ্যপণ্য পৌছেঁ দিচ্ছেন, অসহায় পরিবারের ঘরে ঘরে। কখনও দলের নেতাকর্মীদের মাধ্যমে, কখনও স্ব-শরীরে হাজির হয়ে। সবকিছু ছাঁপিয়ে দৃষ্টান্ত- তার জীবন ঝুঁকি এড়িয়ে জনসেবায় ব্রত হওয়া। নেপথ্যে রয়েছে বঙ্গবন্ধুর ভ্রাতুষ্পুত্র ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক শেখ সোহেলের নির্দেশ ও অনুপ্রেরণা।
বলছিলাম তরুন আওয়ামী লীগ নেতা আজিজুর রহমান পরশ বিশ্বাসের কথা। সে খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সোনাডাঙ্গা থানা শাখার সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বুলু বিশ্বাসের বড় ছেলে। দেশে করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের পর থেকেই পরশ বিশ্বাসের এই জনসেবার চিত্র দেখা গেছে। সর্বশেষ শুক্রবার ৮টি মধ্যবিত্ত পরিবারকে ঈদ উপহার সামগ্রী ঘরে ঘরে পৌছে দেয় পরশ। যার মধ্যে ছিল ১টি মুরগি, ২কেজি পোলাও চাল, ১ কেজি চিনি, সেমাই, দুধ প্রভৃতি।

এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে ১৬নং ওয়ার্ডস্থ দিঘীর পাড় এলাকার বস্তিতে স্বশরীরে গিয়ে ১৭টি পরিবারের কাছে উল্লেখিত ঈদ উপহার তুলে দেন। এসময় অসহায় পরিবারগুলোর সদস্যদের চোখে-মুখে খুশির ঝলক দেখা গেছে। মাঝবয়সী, ওইখানের বাসিন্দা ও স্থানীয়দের ক্রিকেট শিক্ষক বলে খ্যত, পরশের এই পদক্ষেপে অভিভূত হয়ে তাকে ঝাপটে ধরেন। নূরজাহানের পরিবার আবেগভূত হয়ে কেঁদে ফেলেন। সানির পরিবার খুশিতে হন আত্মহারা। সবমিলিয়ে পরিবারগুলো ভীষণ খুশি খাদ্যপণ্যের ঈদ উপহার পেয়ে।
বলা বাহুল্য, পরশ বিশ্বাস এর আগে অবিরতভাবে খাদ্যপণ্য বিতরণ করেছেন। এরমধ্যে ১৫শ’ পরিবারের মাঝে বিনামূল্যে সবজি বিতরণ করেছেন, কখনও নিজে, আবার কখনও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আলোর ছোঁয়া বাংলাদেশের মাধ্যমে। এছাড়া ১৬নং ওয়ার্ডের ৫টি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ইফতার বিতরণ করেছে সে। আর ৭শ’ পরিবারের কাছে ঈদ উপহার হিসেবে নিত্যপণ্যের পসরা দিয়ে ব্যাগ ভর্তি বাজার পাঠিয়েছে পরশ। রমজানজুড়ে তার এই খাদ্যপণ্য প্রদান ও ইফতার বিতরণ কর্মসূচিকে স্বাগত জানিয়ে, অতিথি হিসেবে অংশ নিয়েছেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

পরশ বলেন, জনসেবায় ছুটতে নির্দেশ দিয়েছেন তার অভিভাবক বঙ্গবন্ধুর ভ্রাতুষ্পুত্র ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক শেখ সোহেল। তার অণুপ্রেরণায় সমাজের অসহায়, দুস্থ, কর্মহীন পরিবারের পাশে দাড়ানোর ক্ষুদ্র প্রয়াস করেছি মাত্র। ১৬নং ওয়ার্ডের প্রতিটি পাড়া-মহল্লায় বিচরণ করছি, খোঁজ রাখছি, কথা দিচ্ছি, ইনশাল্লাহ অসহায় মানুষের পাশে থাকবো। এসময় পরশ তার অভিভাবক শেখসোহেল ও তার গর্ভধারিনী মায়ের জন্য সকলের কাছে দোয়া প্রত্যাশা করেন।
না বললেই নয়, করোনা প্রাদূর্ভাবের পর, পরশই সর্বপ্রথম, মুঠোফোনে যোগাযোগ করলেই অসহায় ও কর্মহীনের ঘরে খাদ্যপণ্য পৌছে দেয়া হবে মর্মে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে ঘোষণা দিয়েছিলেন। তারসেই সেবা অব্যাহত রাখতে দেখা গেছে।

 



একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here