মুম্বাইয়ের ভারসোভা কবরস্থানে নিরবেই চিরদ্রিায় শায়িত হলেন ইরফান খান

0
192

খুলনা টাইমস ডেস্ক :

টানা ২ বছর মরণব্যাধি ক্যান্সারের সাথে লড়াই করে এই কঠিন সময়েই চিরনিদ্রায় গেলেন অভিনেতা ইরফান খান।

ইরফান খান ও সপরিবার

অভিনেতার অকাল মৃত্যুতে শোকাস্থব্ধ বলিউড অঙ্গন। শেষবার কাছ থেকে দেখতে পেলেন না তাদের প্রিয় সহকর্মীকে। সাক্ষী থাকতে পারলেন না অভিনেতার শেষযাত্রায়। কারণ, করোনা রুখতে বর্তমানে সারা ভারতে জারি লকডাউন। বুধবার ভারতীয় সময় বেলা ৩ টায় মুম্বাইয়ের ভারসোভা কবরস্থানে দাফন করা হয় অভিনেতা ইরফান খান। নিয়মানুযায়ী, দাফন সম্পন্ন করেন ইরফানের ২ ছেলে বাবিল এবং অয়ন। দাফনের সময় উপস্থিত ছিলেন স্ত্রী সুতপা শিকদার এবং পরিবারের অন্যান্যরা।

ইরফান খান

ইরফানের পরিবারের পক্ষ থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ‘পরিবারের সবার শেষ শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের পরই কবর দেয়া হয় তাকে। নিজের জীবনের এই যুদ্ধে তিনি বরাবরই শক্ত থেকেছেন, তাই এই কঠিন সময়ে আমাদেরও শক্ত থাকতে হবে।’ এদিন মুম্বাইয়ের কোকিলাবেন হাসপাতাল থেকেই ইরফানের লাশ সোজা নিয়ে যাওয়া হয় ভারসোভা কবরস্থানে। সেখানে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে উপস্থিত ছিলেন কমেডিয়ান কপিল শর্মা এবং গায়ক মিকা সিং। এছাড়াও এই কঠিন সময়ে তার পরিবারের পাশে থাকতে হাসপাতালে হাজির হয়েছিলেন পরিচালক বিশাল ভরদ্বাজ যিনি ইরফানের সাথে ‘হায়দার’ এবং ‘সাত খুন মাফ’ ছবিতে কাজ করেছেন। ছিলেন অভিনেতার দীর্ঘ দিনের বন্ধু তিঘমাংশু ধুলিয়াও।

বিনোদন জগতের বাইরেও যে তিনি তার কাজের প্রভাব ফেলেছিলেন তা বুঝিয়ে দিয়ে গেলেন শেষদিনেও। অভিনেতার অকাল মৃত্যুতে শোকবার্তা জ্ঞাপন করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল, মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে থেকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়ও। ইরফানের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও।

মিডিয়া জগতে শোক

টুইটে প্রধানমন্ত্রী মোদি লিখেছেন, ‘ইরফান খানের মৃত্যু সারা বিশ্বের চলচ্চিত্র ও নাট্য জগতের ক্ষতি। ওঁকে সারা বিশ্ব মনে রাখবে অত্যন্ত প্রতিভাশালী এক অভিনেতা হিসেবে। যে অভিনেতার অবাধ বিচরণ ছিল সর্বত্র। ওঁর পরিবার, বন্ধু এবং ভক্তদের প্রতি আমার সমবেদনা রইল।’