বাগেরহাটের রাখালগাছি মহিলা ইউপি সদস্যের হাতে নানী-শিশু নাতনী হামলার শিকার

0
116

বাগেরহাট প্রতিনিধি:
বাগেরহাট সদর থানার রাখাল গাছি ইউনিয়নের ১,২,৩, সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্য মিহিনা বেগম হাতে খালেদা বেগম(৫০) নামের এক নারী ও তার ৪ বছরের নাতনী মরিয়ম কে মারপিট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আর এই ঘটনা টি ঘটেছে সোমবার বাগেরহাট সদরের রাখাল ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামে। হামলার শিকার ওই মহিলা রাখাল গাছি ইউনিয়নের সৈয়দপুর এলাকার বাবুল হাজরার স্ত্রী।
হামলার শিকার ও ই নারী এই প্রতিনিধিকে জানায় ঘটনার দিন আমার নাতনী মরিয়ম(৪) কে সাথে নিয়া আমি গ্রামীন ব্যাংকের কিস্তি দেবার জন্য পুটিমারি কেন্দ্রে যাই, সেখানে ইউ পিসদস্য মিহিনা বেগমকে ও খানে দেখে আমি জিজ্ঞাসা করি য়ে আমার ঘরের খবর কি। লোক জনের ভিতর জিজ্ঞাসা করায় সে আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে আমার চুল টেনে ধরে আমাকে এলোপাথাড়ী চড়,থাপ্পড়, কিল ঘুষি মারতে শুরু করে। আমার নাতনী আমাকে জড়িয়ে ধরে চিৎকার দিলে তাকেও চড়-থাপ্পপড় মারে। স্থানীরা এসে আমাকে ও আমার নাতনী কে উদ্ধার করে।
উল্লেখ্য গত ২২শে জুলাই ২০১৮তে মিহিনা বেগম সরকারি ঘর পাইয়ে দেবার কথা বলে খালেদা বেগমের কাছ থেকে ১৮ হাজার নগদ টাকা নেয়। সেই থেকে অদ্যবদি কোন ঘরের ব্যাবস্থা করে নাই এবং টাকাও ফেরৎ দেয় নাই। বিভিন্ন অজুহাতে কাল ক্ষেপন করে চলছে। উক্ত টাকা ফেরত চাওয়াকে কেন্দ্র করে এবং মিহিনা বেগমের বিভিন্ন রকম অনিয়মের কথা লোক মুখে প্রকাশ করার জন্য মিহিনা এবং তার লোক জন মিলে খালেদা বেগম কে এবং তার কোলের ৪বছরের নাতনিকে ব্যাপক মারধর করে,তার আর্তচিৎকারে স্থানীয় লোকজন এসে তাদের আহত অবস্থায় উদ্ধার করে বড়িতে পাঠিয়ে দেয়। এ ব্যাপারে ভুক্তভুগিরা বাগেরহাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট লিখিত অভিযোগ করেছে।
খালেদার উপর হামলা এ বিষয়ে মহিলা ইউপি সদস্য মিহিনা বেগমের সাথে মুঠো ফোনে যোগা যোগ করে জানতে চাইলে খালেদার আভিযোগ অস্বিকার করে বলেন আমার সুনাম নষ্ট করতে এই ধরনের মিথ্যা অপপ্রচার করছে। খালেদার অনেক শালীস বিচার আমি করেছি।