তালায় আওয়ামী লীগে দ্বিধা বিভক্তি

0
132

নিজস্ব প্রতিনিধি: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রার্থী মনোনয়ন নিয়ে সাতক্ষীরার তালা উপজেলায় আওয়ামী লীগে দ্বিধা বিভক্তি সৃষ্টি হয়েছে। দলীয় প্রার্থী মনোনয়নে কতিপয় ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদকের ডাকে সমাবেশ আহবান করা হলেও দলের বৃহৎ একটি অংশ সেখানে হাজির হয়নি। বিশেষ করে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সম্পাদকসহ সহযোগি সংগঠনের কোন নেতৃবৃন্দকে সেখানে দেখা যায়নি। এমনকি দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরাও সেখানে উপস্থিত ছিলন না। এ ঘটনায় আওয়ামী লীগসহ সহযোগি সংগঠনের নেতা-কর্মী ও দলীয় টিকিটে নির্বাচিত অনেক জনপ্রতিনিধিরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

এ বিষয়ে দলীয় নেতৃবৃন্দ বলেন, দলীয় প্রার্থী মনোনয়নের নামে বিশেষ কোন নেতার ইন্ধনে আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচনের পূর্ব মুহূর্তে এ ধরণের কর্মকান্ডকে জামায়াত-বিএনপিকে উৎসাহিত করা। দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন এবং দলের ভিতরে বিভেদ সৃষ্টি করা, জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন কর্মকান্ডকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করে আগামী নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীকে পরাজিত করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে চক্রটি। তৃণমূল নেতৃবৃন্দের একটাই বক্তব্য, জননেত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য অনুযায়ী তিনি যাকে নৌকা প্রতিক নিয়ে পাঠাবেন তার পক্ষে সকলেই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবেন।

জানা যায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে দলীয় প্রার্থী মনোনয়নে ইউপি চেয়ারম্যান ফোরাম ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদক ফোরামের ডাকে ৪ নভেম্বর (রবিবার) পাটকেলঘাটা পাঁচরাস্তা মোড়ে এক সমাবেশ আহবান করা হয়। উক্ত সমাবেশে দলের উপজেলা সভাপতি-সম্পাদকসহ সহযোগি সংগঠনের নেতা-কর্মী ও দলীয় ইউপি চেয়ারম্যানের অধিকাংশকেই দেখা যায়নি। এমনকি দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরাও সেখানে উপস্থিত ছিলন না। সেখানে তালা সদর, খলিলনগর, তেঁতুলিয়া, জালালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদক, খেশরা ইউনিয়নের সভাপতি, কুমিরা ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক, ইসলামকাটি ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক, নগরঘাটা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামানা লিপু, খলিষখালী ইউপি চেয়ারম্যান মোজাফ্ফার রহমান, তেঁতুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সরদার রফিকুল ইসলাম, তালা সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি সরদার জাকির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য কাজী নজরুল ইসলাম হিল্লোল এবং উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জেবুন্নেছা খানমসহ কৃষকলীগ, শ্রমিকলীগ, ছাত্রলীগসহ সহযোগি সংগঠনের শীর্ষ স্থানীয় নেতা-কর্মীদের দেখা যায়নি।