খুলনায় প্রকাশ্যে দিবালোকে যুবলীগ কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা

0
4013

নিজস্ব প্রতিবেদক:
খুলনায় প্রকাশ্যে দিবালোকে মোঃ মহিদুল ইসলাম (২৬) নামের এক যুবলীগ কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল মঙ্গলবার বেলা পৌনে ৪টায় মহানগরীর সোনাডাঙ্গা থানাধীন মজিদ সরণির সুজুকি শো-রুমের সামনে ওই ঘটনা ঘটে।
নিহত মহিদুল বটিয়াঘাটা উপজেলার জলমা ইউনিয়নের মহম্মদ নগর এলাকার মো. শওকত শেখের ছেলে। তিনি পেশায় একজন বালু ব্যবসায়ী। তিনি খুলনা মহানগর যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সিনিয়র সদস্য এসএম হাফিজুর রহমান হাফিজের চাচাতো ভাই।
প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, কিছুদিন আগে সুজুকি শোরুম থেকে একটি মোটরসাইকেল কেনেন মহিদুল। ঘটনার সময় তিনি তার তিন বন্ধুকে নিয়ে ওই শোরুমে গিয়েছিলেন মবিল পরিবর্তন করতে। অন্য বন্ধুরা শোরুমের ভেতরে থাকলেও তিনি বাইরে বেরিয়ে এক চায়ের দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এমন সময় দুই যুবক অতর্কিতে এসে মহিদুলকে কুপিয়ে পালিয়ে যান। পরে স্থানীয় লোকজন ও শোরুমের ভিতর থেকে তিনজন বন্ধু এসে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) শেখ মনিরুজ্জামান মিঠু জানান, নিহতের পেটের বাম পাশে ও গলায় ধারালো ছুরি দিয়ে আঘাতের কারণে অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরণে তিনি ঘটনাস্থানে মারা যান। নিহতের মরদেহ খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। কে বা কারা এ হত্যার সাথে জড়িত তা অনুসন্ধান করা হচ্ছে এবং দুর্বৃত্তদের আটকের চেষ্টা চলছে। পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
এ বিষয়ে সোনাডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মমতাজ উদ্দিন বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধে এ হত্যাকান্ড ঘটতে পারে।
সুষ্ঠু তদন্তের নির্দেশ সিটি মেয়রের : সন্ত্রাসীদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে নিহত যুবলীগ কর্মী মহিদুল ইসলাম এর লাশ দেখতে গতকাল মঙ্গলবার রাত ৮টায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যান খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক। এসময় সিটি মেয়র নিহত অহিদুল হত্যার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য প্রশাসনকে নির্দেশ দেন।
এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তসলিম আহমেদ আশা, খুলনা মহানগর আওয়ামী যুবলীগের নবনির্বাচিত আহবায়ক সফিকুর রহমান পলাশ ও যুগ্ম আহবায়ক শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজন, ২৩নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফায়েজুল ইসলাম টিটো, যুবনেতা এস এম হাফিজুর রহমান, শেখ আব্দুল কাদের, এ্যাড আল আমিন উকিল, মোঃ আবুল হোসেন, কাজী কামাল হোসেন, নজরুল ইসলাম দুলু, শওকত হোসে, শেখ মোহাম্মদ আলী, অভিজিৎ চক্রবর্তী দেবু, কবির পাঠান, তাজুল ইসলাম, মোস্তফা শিকদার, কাজী ইব্রাহিম মার্শাল, জুয়েল হাসান দিপু, সাজ্জাদুর রহমান লিংকন, মহিদুল ইসলাম মিলন, মশিউর রহমান সুমন, মেহেদী হাসান মোরল, কে. এম. শাহীন, ইয়াসিন আরাফত, রাশেদুল ইসলাম রাশেদ প্রমুখ।